শতবর্ষী ভাষা সৈনিক আল্লামা হাশেমীর চিরবিদায়

মনজুর আলম
আপডেটঃ জুন ২, ২০২০ | ৮:১১
মনজুর আলম
আপডেটঃ জুন ২, ২০২০ | ৮:১১
Link Copied!

উপমহাদেশের প্রখ্যাত ইসলামী চিন্তাবিদ, বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষ স্থানীয় আলেমে দ্বীন, ভাষা সৈনিক ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক উস্তাজুল উলামা ইমামে আহলে সুন্নাত শায়খুল হাদীস আল্লামা নুরুল ইসলাম হাশেমী চিরবিদায় নিয়েছেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

তাঁর চির বিদায়ে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ এর চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আতের সভাপতি ও ইমামে রাব্বানী দরবার শরীফের পীর আল্লামা সৈয়দ বাহাদুর শাহ্ মোজাদ্দেদী গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতিও সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি। মৃত্যুকালে আল্লামা হাশেমীর বয়স হয়েছিলো প্রায় ১০০ বছর। তিনি ১০ ছেলে ও ৩ মেয়ে বহু গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। চট্টগ্রামের একটি বেসরকারী হাসপাতালে দু-সপ্তাহ যাবৎ বার্ধ্যক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। মঙ্গলবার ভোর ৫টায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। আজ আছরের নামাজের পর নিজ বাড়াতে প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। আগামীকাল আরও কয়েকটি নামাজে জানাজা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পরিবার সূত্রে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

জানা গেছে, আল্লামা নুরুল ইসলাম হাশেমী জীবদ্দশায় দ্বীন ইসলাম প্রচারে ব্রতী ছিলেন। ঐতিহ্যবাহী ইমামে রাব্বানী দরবার শরীফের প্রতিষ্ঠাতা আওলাদে রাসূল(দ.) আল্লামা সৈয়দ আবেদ শাহ্ মোজাদ্দেদী(রাহ.) এর প্রথম খলিফা হিসেবে বিশ্বব্যাপী আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আতের প্রচার করেন। এছাড়াও তিনি ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনে সরাসরি যোগ দিয়ে দেশপ্রেমের বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন। মুক্তিযুদ্ধেও পাকিস্তানী হানাদার বাহীনীর বিরুদ্ধে ওয়াজ-মাহফিলে জনমত তৈরি করেন। এমনকি সরাসরি মুক্তিযুদ্ধেও অংশ গ্রহণ করেন বলে জানা গেছে।

বিজ্ঞাপন

এক শোক বার্তায় আল্লামা সৈয়দ বাহাদুর শাহ্ মোজাদ্দেদী বলেন, আল্লামা নুরুল ইসলাম হাশেমী ছিলেন দ্বীনী আন্দোলনের একজন অকুতোভয় যোদ্ধা। অনেক জ্ঞানের অধিকারী হয়েও একজন নিরহংকার মানুষ হিসেবে সুপরিচিত ছিলেন তিনি। ইমামে রাব্বানী দরবার শরীফের প্রথম খলিফা হিসেবে সুন্নীয়্যত প্রচারে তিনি অনেক অবদান রেখেছেন। বর্ষীয়ান নেতা হিসেবে তাঁর চির বিদায় একটি অপূরণীয় ক্ষতি।

আল্লামা সৈয়দ বাহাদুর শাহ্ মোজাদ্দেদী তাঁর ফেইসবুক পেজে লিখেছেন, আমরা হারালাম আমাদেরকে বটবৃক্ষের ন্যায় ছায়াদানকারী আরেকজন অভিভাবক, ইমামে রাব্বানী দরবার শরীফের আরেকজন খলিফাকে।
আল্লামা কাযী নূরুল ইসলাম হাশেমী(রহঃ) ছিলেন মুজাদ্দিদে জামান আলে রাসূল(দঃ) ইমামে রাব্বানী আবু নসর সাইয়্যিদ আবেদ শাহ আল মাদানী(রাঃ)’র অতি আস্থাভাজন এবং প্রিয়ভাজন।

আল্লামা ইমাম কাযী নূরুল হাশেমী(রহঃ)’র শরীয়ত, তরিকত, হাকীকত এবং মারেফতের জ্ঞান ও চর্চার উৎকর্ষতা দেখে মুজাদ্দিদে জামান, ইমামে রাব্বানী আবু নসর সাইয়্যিদ আবেদ শাহ আল মাদানী(রাঃ) তাঁকে বায়াতে রাসূল(দঃ) লওয়ার খেলাফত প্রদান করে ইমামে রাব্বানী দরবার শরীফের খলিফা নিযুক্ত করে দ্বীন ও মিল্লাতের খেদমতের দায়িত্ব অপর্ণ করেছিলেন। তিনি তাঁর জীবদ্দশায় নিজ অবস্থান থেকে যথাযথভাবে স্বীয় পীর ও মুর্শিদ কর্তৃক অর্পিত দায়িত্ব পালন করার মধ্যে দিয়ে দল মত নির্বিশেষে সকল শ্রেণীর সুন্নিজনতার নয়নমণি হয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন

ইমামে রাব্বানী দরবার শরীফের আশেকান, মুরিদান এবং সকল স্তরের ভক্তবৃন্দ ইমামে আহলে সুন্নাত আল্লামা কাযী নূরুল ইসলাম হাশেমী হুজুরের বিয়োগে তীব্র অভাব অনুভব করবে। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন হুজুরকে স্বীয় পীর ও মুর্শিদ আবু নসর সাইয়্যিদ আবেদ শাহ আল মাদানী(রাঃ)’র সাথে জান্নাতের উচ্চ মকাম দান করুক। আমিন, ইয়া রাব্বুল আলামিন।

অন্যান্যের মধ্যে শোক প্রকাশ করেন, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ এর মহাসচীব অধ্যক্ষ আল্লামা জয়নুল আবেদীন জুবাইর, যুগ্ম-মহাসচীব এসএম সোলায়মান ফরিদ, আল্লামা মোশারফ হোসেন হেলালী, আল্লামা খাজা আরিফুর রহমান তাহেরী সহ ইসলামিক ফ্রন্ট কেন্দ্রীয়, জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দ। এছাড়াও ইসলামী ছাত্রসেনা, হিযবুর রাসূল(দ.) বাংলাদেশ, যুব হিযবুর রাসূল(দ.) কেন্দ্রীয়, জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:

ট্যাগ: