করোনা জয় করলেন মতলবের পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন লিটন

পপুলার বিডিনিউজ রিপোর্ট
আপডেটঃ আগস্ট ৯, ২০২০ | ১০:১৬
পপুলার বিডিনিউজ রিপোর্ট
আপডেটঃ আগস্ট ৯, ২০২০ | ১০:১৬
Link Copied!

করোনাকে জয় করলেন মতলব পৌরসভার মেয়র আওলাদ হোসেন লিটন। গত ২৭ জুলাই নমুনা পরীক্ষায় তাঁর দেহে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়।

জানা যায়, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের শুরু থেকে একজন সম্মুখ সারির যোদ্ধা হিসেবে তিনি পৌরবাসীর সেবা দিয়ে গেছেন। তিনি সচেতনতামূলক কার্যক্রম, শহরের রাস্তাঘাটে জীবাণুনাশক স্প্রে, প্রধান মন্ত্রীর উপহার বিতরণ, করোনা শনাক্ত বাড়ি লকডাউন ও খাদ্য সহায়তাসহ ভিটামিন সি যুক্ত ফলমূলসহ নানা কাজ সামনে থেকে করে গেছেন। শনিবার দ্বিতীয়বার নমুনা দিলে তাঁর করোনা নেগেটিভ আসে।

মেয়র আওলাদ হোসেন লিটন বলেন, অবশেষে আমার যুদ্ধ জয় অর্জিত হলো, মরণব্যাধি কোভিড ১৯- এর থাবা থেকে। মহান আল্লাহ পাকের অশেষ মেহেরবানী ও আত্মীয়-স্বজন, দেশ-বিদেশের বন্ধুবান্ধব, রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক ব্যক্তিবর্গ, বিভিন্ন মসজিদের ইমামগন,আমার প্রিয় পৌরবাসী ও আমার কিছু কাছের শুভাকাঙ্ক্ষী যারা আমার জন্য প্রাণভরে দোয়া করেছেন তাদের অসংখ্য দোয়া ও ভালোবাসায় দীর্ঘ প্রায় ১৫ দিন করোনা ভাইরাসের সাথে যুদ্ধ করে আজ দ্বিতীয়বারের মতো টেস্ট রেজাল্ট নেগেটিভ পেলাম।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, সম্পূর্ণ আইসোলেশনে থেকে নিজেকে সহ পরিবারের সবাইকে জীবন-মৃত্যুর দোলাচল থেকে রক্ষা করায় মহান রাব্বুল আলামীনের প্রতি আমি শুকরিয়া আদায় করছি। সত্যিই তাদের কাছে আমি চির কৃতজ্ঞ। বিশেষ করে যে সকল ডাক্তার আমাকে প্রথম থেকেই কোভিড-১৯ এর সকল আপডেট চিকিৎসা দিয়ে গেছেন। এছাড়া আমার কিছু বন্ধু,বড় ভাই ও বেশ কিছু শুভাকাঙ্ক্ষী যারা আমাকে সবসময় সাহস ও অন্যান্য সহযোগিতা করেছেন।

স্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি বলেন, আমার স্ত্রী, যার অক্লান্ত পরিশ্রম ও সম্পূর্ণ সহযোগিতা ছাড়া হয়তো আমি কখনোই আবার সবার মাঝে ফিরে আসতে পারতাম কিনা আমার জানা ছিল না! তার কাছে আমি চির কৃতজ্ঞ হয়ে রইলাম।

আমার দুটি সন্তান, যাদের প্রতিটি মুহূর্ত বলতেই আমি সেই সন্তানরাও মানসিকভাবে আমাকে অনেক সহযোগিতা করেছে সুস্থ হওয়ার জন্য তাদের কাছেও আমি অনেক অনেক কৃতজ্ঞ। এখনো আমাকে পুরোপুরি সুস্থ হতে আরও বেশ কিছু দিন সময় লাগবে এই জন্য দোয়া করবেন সবাই আমার জন্য। সবাই ভাল থাকবেন, সাবধানে থাকবেন।

বিজ্ঞাপন

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা হক বলেন, তিনি করোনা বিস্তারের শুরু থেকেই সংক্রমণ প্রতিরোধে কাজ করেছেন। পৌরবাসী তাঁর কাছ থেকে খাদ্য সহায়তাসহ নানা সেবা পেয়ে অনেক উপকৃত হয়েছিল। আশা করছি সুস্থ হয়ে আবারও জনগণের সেবায় সম্পৃক্ত করবেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:

ট্যাগ: