জাতির ইতিহাসে নিকৃষ্টতম দিন

অধ্যাপক মো: সেলিম
আপডেটঃ আগস্ট ১৫, ২০২০ | ১২:০৭
অধ্যাপক মো: সেলিম
আপডেটঃ আগস্ট ১৫, ২০২০ | ১২:০৭
Link Copied!

১৫ ই আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস । এই দিনটি বাঙ্গালী জাতির ইতিহাসে নিকৃষ্টতম দিন। ১৯৭৫ সালের এই দিনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যদের ক্ষমতালিপ্সু ও স্বাধীনতা বিরোধী এই দেশীয় চক্র ও তাদের আর্ন্তজাতিক গুরুদের ক্রিড়ানক হয়ে সেনাবাহিনীর কতিপয় বিপদগামী সদস্য র্নিমম ও নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করেন।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে প্রকৃত পক্ষে হত্যা করা হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও র্সাবভৌমত্বকে। যুদ্ধ বিধ:স্থ বাংলাদেশের র্পুনগঠনের সকল কাজ বঙ্গবন্ধু মাত্র সাড়ে তিন বছরের মধ্যে শেষ করে তাঁর সারাজীবনের লালিত স্বপ্ন দেশকে সোনার বাংলায় রূপান্তরের পথে যখন অপ্রতিরোধ্যভাবে এগিয়ে চলছিল , ঠিক তখনই পরাজিত
শক্তি বঙ্গবন্ধুকে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দেন। বঙ্গবন্ধু হত্যার সুবিধাভোগীরা বাঙ্গালী জাতিকে র্দীঘ দুই দশক সামরিক শাসনের যাতাকলে পিষ্ট করে মানুষের সকল অধিকার খর্ব করা হয়। গনতন্রহীনতার অন্ধকার থেকে এই জাতিকে উদ্ধার করার ব্রত নিয়ে বহু বাধাবিপত্তি অতিক্রম করে বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা বিদেশ থেকে ৮০র দশকে দেশে এসে আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে দেশে গনতন্র পুন:প্রতিষ্ঠা করেন । বাংলার মানুষ তাকে দেশ শাসনের জন্য র্নিবাচিত করেন ।

মাননীয় প্রধানমন্রী ক্ষমতা গ্রহণ করে সামাজিক ও অর্থনৈতিক সকল সূচকে দেশকে এক ঈর্ষণীয় অগ্রগতীর স্তরে নিয়ে পৌছান। জননেত্রী তাঁর পিতার মতই এদেশের মানূষকে ভালোবাসেন এবং তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা ও অর্থনৈতিক উন্নতির জন্য রাতদিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন । কিন্তু দু:খ জনক হলেও সত্য যে , কতিপয় দুর্নীতিবাজ লোকদের জন্য তাঁর মহৎপ্রচেষ্টা র্ব্যথ হবে – তা হতে পারে না। বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বরণের এই শোকাবহ দিবসে দুর্নীতির মূল উৎপাটন করার শক্ত অঙ্গীকার ও দৃঢ় পদক্ষেপ গ্রহণ করার ক্ষেত্রে বতর্মান সরকারকে সহযোগীতা করার জন্য প্রকৃত বঙ্গবন্ধু প্রেমিকদের সাহসের সাথে এগিয়ে আসা উচিত । তবেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠিত হবে ও তাঁর আত্মা শান্তি পাবে । পরিশেষে বঙ্গবন্ধুর আত্মার মাগফেরাত কামনা করি ও তাঁর খুনিদের প্রতি জানাই চরম ঘৃণা ।

বিজ্ঞাপন

অধ্যাপক মো: সেলিম
সভাপতি
বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদ
হাজিগঞ্জ উপজেলা শাখা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:

ট্যাগ: